শুক্রবার   ১৫ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ১ ১৪২৬   ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

চট্টলার বার্তা
সর্বশেষ:
ফোকফেস্টের পর্দা উঠছে আজ গাজায় ইসরায়েলি বর্বরতা চলছেই, নিহত বেড়ে ৩২ ইডেনে বাংলাদেশ-ভারত টেস্ট দেখতে হাসিনাকে চিঠি মোদির শুরু হলো আয়কর মেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের শীর্ষ পদে আলোচনায় যারা ‘দেশ ক্ষুধামুক্ত হয়েছে, এবার লক্ষ্য দারিদ্র্যমুক্ত করা’
৬২৭

‘রাগের’ বশবর্তী হয়ে ‘একা’ খুন, দাবি রিপনের

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৮ জুন ২০১৯  

চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারের ভেতরে পুলিশের তালিকাভুক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী অমিত মুহুরী খুনের ঘটনায় অভিযুক্ত আসামি রিপন নাথকে ৫ দিনের রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করছে নগর গোয়েন্দা পুলিশের তদন্ত টিম। জিজ্ঞাসাবাদে রিপন নাথ অমিত মুহুরীকে ‘রাগের’ বশবর্তী হয়ে ‘একা’ খুন করেছে বলে দাবি করেছে।

৫ দিনের রিমান্ডের তৃতীয় দিন শনিবার তদন্ত কর্মকর্তাদের কাছে এমন দাবি করে রিপন নাথ। তদন্ত সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে এ তথ্য জানা গেছে।

রিপন নাথ দাবি করেছে, রাতে ঘুমানো নিয়ে অমিত মুহুরীর সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয় তার। পরে রাগের বশবর্তী হয়ে ঘুমের মধ্যে অমিত মুহুরীকে মাথায় ইট দিয়ে আঘাত করে। এ ঘটনায় তার সঙ্গে আর কেউ ‘জড়িত নয়’ বলেও দাবি করেছে রিপন নাথ।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) আসিফ মহিউদ্দীন বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে রিপন নাথ কিছু তথ্য দিয়েছে। সেগুলো যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। সে একা খুন করেছে বলে দাবি করেছে আমাদের কাছে। তবে তার সঙ্গে আর কেউ জড়িত কী না তা আমরা খতিয়ে দেখছি।

২৯ মে রাতে কারাগারের ভেতর ৩২ নম্বর সেলের ৬ নম্বর কক্ষে রিপন নাথের ইটের আঘাতে গুরুতর আহত হন অমিত মুহুরী। পরে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে তিনি মারা যান।

এ ঘটনায় রিপন নাথকে আসামি করে কোতোয়ালী থানায় মামলা দায়ের করেন চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার নাশির আহমেদ।

তদন্ত কর্মকর্তা ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন জানালে ৩ জুন অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মহিউদ্দিন মুরাদের আদালত আসামি রিপন নাথের ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

অভিযুক্ত রিপন নাথ সীতাকুণ্ড উপজেলার ফেদা নগর হেমন্ত সরকার বাড়ির নারায়ন নাথের ছেলে। সে পাহাড়তলী থানায় দায়ের হওয়া একটি মামলায় গ্রেফতার হয়ে কারাগারে বন্দি আছে।

খুনের শিকার অমিত মুহুরী কোতোয়ালী থানার নন্দনকানন গোলাপ সিং লেইনের অরুন মুহুরীর ছেলে।

২০১৭ সালের আগস্টে চট্টগ্রাম নগরের এনায়েতবাজার এলাকার রাণীরদিঘি এলাকায় বন্ধু ইমরানকে খুন করে মরদেহ ড্রামে ভরে দীঘিতে ফেলে দেয় অমিত। ঘটনার পর কুমিল্লায় গিয়ে আত্মগোপনে ছিলো অমিত। সেখান থেকে অমিতকে গ্রেফতার করে নগর গোয়েন্দা পুলিশের কর্মকর্তা আসিফ মহিউদ্দিনের নেতৃত্বে একটি টিম। গ্রেফতারের পর থেকে কারাগারে ছিলো অমিত মুহুরী।

চট্টলার বার্তা
চট্টলার বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর