বৃহস্পতিবার   ১২ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ২৭ ১৪২৬   ১৪ রবিউস সানি ১৪৪১

চট্টলার বার্তা
২০

ভাইরাস-পোকার আক্রমণে শঙ্কা

প্রকাশিত: ১৪ নভেম্বর ২০১৯  

জামলাপুর সদরের শরিফপুর, লক্ষ্মী চর ও তুলশীর চর ইউপির বিস্তীর্ণ চরভূমি। এসব চরভূমি সবজির গ্রাম হিসেবে পরিচিত। সেখানে এবার ব্যাপক টমেটো চাষ হয়েছে। তবে ভাইরাস ও পোকার আক্রমণে টমেটো ক্ষেত নষ্ট হচ্ছে। এরইমধ্যে গাছ ও টমেটোতে পচন ধরায় লোকসানের শঙ্কায় রয়েছেন কৃষকরা। এদিকে, টমেটো চাষের লোকসান এড়াতে প্রয়োজনীয় সহায়তার আশ্বাস দিয়েছে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর।  

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের তথ্যানুযায়ী, জেলা সদরের লক্ষীরচর, তুলশীরচর, রানাগাছা, শরিফপুর, নরুন্দি, ইটাইল ইউপির এক হাজার ৮০০ হেক্টর জমিতে উদয়ন, উন্নয়ন, দিগন্ত, রূপসী, বিউটিফুল, লাভলী, ব্র্যাকের আবিষ্কৃত ১৭৩৬, সফল, কোহিনুর মঙ্গলসুপার ও মঙ্গলরাজা জাতের টমেটো চাষ হয়েছে। 

 

টমেটো ক্ষেতের বয়স্ক গাছের পাতায় ভাইরাস রোগের লক্ষণ দেখা যাচ্ছে। একে একে উপরের পাতা আক্রান্ত হচ্ছে। আক্রান্ত পাতার উপর কাল বা হালকা বাদামি রঙের বৃত্তাকার দাগ পড়েছে। অনেক দাগ একইসঙ্গে পাতার অনেকাংশ নষ্ট হচ্ছে। এছাড়া পাতা হলদে বা বাদামি রঙ ধারণ করে মাটিতে ঝরে পড়ছে। কাণ্ডে ছোট ছোট, গোলাকার বা লম্বা ও ডুরা দাগ পড়েছে। পুষ্প মঞ্জুরির বোঁটা আক্রান্ত হয়ে ফুল ও অপ্রাপ্ত ফল ঝরে পড়ছে। ফলেও বৃত্তাকার দাগের সৃষ্টি হয়ে নষ্ট হচ্ছে। 

লক্ষ্মীপুর গ্রামের চাষি লোকমান হোসেন বলেন, গতবারের মতো এবারো দুই বিঘা জমিতে টমেটো চাষ করেছি। কিন্তু টমেটো ক্ষেত এখন নষ্ট হচ্ছে। ক্ষেতে টমেটোর জোয়ার এসেছে। কিন্তু এক প্রকার পোকার আক্রমণে ক্ষেত নষ্ট হচ্ছে। 

তিনি আরো বলেন, দুই বিঘা জমিতে প্রায় ৫০ হাজার হাজার টাকা খরচ হয়েছে। কিন্তু ফলন খারাপ হওয়ায় বিনিয়োগ করা টাকা তোলার শঙ্কায় রয়েছি।

একই গ্রামের চাষি আব্দুস সামাদ, আব্দুস সালাম, শুকুর হাসান, মজিবুর রহমান, ফটিক মিয়া ও আবদুর রশিদ বলেন, দুই মাস আগে বাড়ির আঙিনায় টমেটো চারা তৈরি করা হয়। চারা উঠানোর সময় বহু চারার নিচে ঠিকমত শিঁকড় গজায়নি। ভাবছিলাম শিঁকড় কম গজানো চারা ক্ষেতে রোপণ করলে বেড়ে উঠবে। কিন্তু বেড়ে উঠেনি। কম গজানো চারা ক্ষেতেই মরে গেছে।

 

বানিয়াবাজারের টমেটো চাষি নূরুল মিয়া বলেন, দুই বিঘা জমিতে টমেটো চাষ করেছিলাম। টমেটোর পরিচর্যা করতে অনেক খরচ হয়েছে। এখন অনেক গাছ মরে গেছে। যে পরিমাণ খরচ হয়েছে তা পুষিয়ে তোলা সম্ভব হবে না।

শরিফপুরের আব্দুল করিম বলেন, টমেটো ক্ষেতের অর্ধেক গাছ নষ্ট হয়েছে। বার বার রোগ প্রতিরোধক স্প্রে করে টমেটো গাছ রক্ষা করা যাচ্ছে না। 

জামালপুর সদরের কৃষি কর্মকর্তা সাখাওয়াত ইকরাম জানান, বিরূপ আবহাওয়া ও টানা বৃষ্টিতে পোকা এবং ভাইরাসের আক্রমণ টমেটো ক্ষেতের ক্ষতি হয়। তবে ক্ষেত রক্ষায় কৃষকদের প্রয়োজনীয় পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।

জামালপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক আমিনুল ইসলাম জানান, জেলা সদরের শরিফপুর, লক্ষ্মী চর ও তুলশীর চর ইউপি চরভূমিতে টমেটো ক্ষেতে পোকা ও ভাইরাস আক্রমণ করেছে। এরইমধ্যে কিছু কিছু গাছ রোগাক্রান্ত হয়েছে। 

কৃষকদের লোকসান এড়াতে প্রয়োজনীয় সহযোগিতাসহ সব ব্যবস্থা জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর নেয়ার কথা জানান এ কৃষি কর্মকর্তা।

চট্টলার বার্তা
চট্টলার বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর