শুক্রবার   ০৫ জুন ২০২০   জ্যৈষ্ঠ ২১ ১৪২৭   ১৩ শাওয়াল ১৪৪১

চট্টলার বার্তা
১৭০

চট্টগ্রামে রোগী পরিবহনে ভরসা মানবাধিকারের অ্যাম্বুল্যান্স

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৬ মে ২০২০  

‘রাত তিনটা। চারদিন বয়সী সিজারিয়ান নবজাতক ডায়রিয়ায় কাহিল। রাস্তায় কোনো গাড়ি নেই। কোনো হাসপাতালের অ্যাম্বুল্যান্সও পাচ্ছি না। প্রতিটি মুহূর্ত যখন মূল্যবান তখনি একজনের কাছে পেলাম মানবাধিকার কমিশনের ফ্রি অ্যাম্বুল্যান্সের নাম্বার। কয়েকবার কল করতেই রিসিভ হলো। ১০ মিনিটে অ্যাম্বুল্যান্স হাজির।’

করোনাকালে দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম নগর, চট্টগ্রামে চালু হওয়া বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের ফ্রি অ্যাম্বুল্যান্স সার্ভিসের উপকারভোগী মোহাম্মদ রাজিব এভাবেই প্রতিক্রিয়া জানালেন।

রাজিব বলেন, দুঃসময়ে অ্যাম্বুল্যান্স পাওয়াটা আমাদের জন্য বিরাট উপকার। এ উপকারের কথা কখনো ভুলবো না।

রফিকুল আলম মানবাধিকার কমিশনের অ্যাম্বুল্যান্স সেবা নিয়ে ফেসবুকে লিখেছেন, আমিনুল হক বাবু ভাই আমার অ্যাম্বুলেন্স লাগবে। কেন আর জিজ্ঞাসা করলেনও না। তাৎক্ষণিক ড্রাইভারকে আমার নম্বর দিলেন। ড্রাইভার আমাকে কল করলেন। আমি অবাক, ৮-১০ মিনিট অ্যাম্বুলেন্স হাজির বাসার দুয়ারে। ফ্রি সার্ভিসের সুফল পেয়ে আমি অভিভূত ও কৃতজ্ঞ। হঠাৎ নামাজ পড়া অবস্থায় বুকে ব্যথা অনুভব করা রোগীকে মেডিক্যাল নেওয়ার জন্য গন্তব্য থেকে ডাইরেক্ট গাড়ি না পাওয়ায় কল দিয়ে মানবাধিকার কমিশনের সিনিয়র ডেপুটি গভর্নর আমিনুল হক বাবু ভাইকে কল দিলে অ্যাম্বুলেন্স দ্রুত চলে আসলো। চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল রোগীকে পৌঁছাতে সক্ষম হই খুব দ্রুত গতিতে। অভিভূত হলাম ড্রাইভার আর তার সহযোগীর দায়িত্বশীলতা দেখে।

গত ২০ এপ্রিল থেকে নগরের সাধারণ রোগীদের বিনামূল্যে ২৪ ঘণ্টা অ্যাম্বুল্যান্স সেবা দিচ্ছে চারটি মোবাইল ফোন নাম্বারে (০১৬১৭ ৪৪৫৫৪৪, ০১৭১৮ ২১৮৪১৫, ০১৭১২ ৮২৩৭২১ ও ০১৫১৯ ৭০২০২০)।

‘মানবতার ডাকে সাড়া, দিন রাত ২৪ ঘণ্টা’ স্লোগানের এ অ্যাম্বুল্যান্স সেবা পেয়েছেন কয়েকশ’ মানুষ। এর মধ্যে রোগী, ডাক্তার, রক্তদাতাও নিয়েছেন জরুরি সেবা।

আমিনুল হক বাবু বলেন, লকডাউন পিরিয়ডে যানবাহনের অপ্রতুলতার কারণে মানুষের কষ্ট লাঘবে এ উদ্যোগ নিয়েছি আমরা। সংগঠনের নেতৃবৃন্দের মোবাইল নাম্বারে ফোন করে চট্টগ্রাম সিটির যেকোনো মুমূর্ষু রোগী এ সেবা নিতে পারছেন সম্পূর্ণ বিনামূল্যে। তবে আগ্রহ থাকলেও করোনা সাসপেক্ট অথবা করোনা রোগী পরিবহন করতে পারছি না আমরা। কারণ করোনা রোগী পরিবহনে বিশেষ নিরাপত্তা প্রয়োজন। আমাদের তিনটি অ্যাম্বুল্যান্স ২৪ ঘণ্টা সপ্তাহের ৭ দিন সেবা দিচ্ছে।

তিনি জানান, করোনাভাইরাসের শুরু থেকে বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন বৃহত্তর চট্টগ্রাম আঞ্চলিক শাখার পক্ষ থেকে ৫ হাজার মাস্ক এবং ২ হাজার স্যানিটাইজার বিতরণ করা হয়েছে। এর বাইরে একটানা ১০ দিন নগরের বিভিন্ন এলাকায় বিশেষ করে স্টেশন রোডে ছিন্নমূল, মাঝিরঘাটে শ্রমিক, কদমতলীতে বস্তি এলাকা, ইপিজেডে শ্রমিক এলাকা, আকবর শাহ সহ বিভিন্ন জায়গায় দৈনিক ৩০০ লোকের মধ্যে খাদ্য সরবরাহ করা হয়। করোনা রোগীদের জন্য আন্দরকিল্লা জেনারেল হাসপাতালে ফ্লাস্কসহ সুরক্ষা সামগ্রী দেওয়া হয়েছে।

চট্টলার বার্তা
চট্টলার বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর