রোববার   ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০   ফাল্গুন ১০ ১৪২৬   ২৮ জমাদিউস সানি ১৪৪১

চট্টলার বার্তা
১৮৫

‘অমুকের পয়সা আছে, দল চালাতে সুবিধা হবে’ এই বিবেচনায় পদ নয় 

বাসস, পাবনা

প্রকাশিত: ৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেছেন, কারও অর্থবিত্ত দেখে আওয়ামী লীগে কোনো পদ-পদবি দেওয়া যাবে না। ‘অমুকের পয়সা আছে, দল চালাতে সুবিধা হবে’ এই বিবেচনায় কাউকে পদ দেওয়া যাবে না উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘এটি আমাদের দলের রাজনীতি ও আদর্শ নয়। দল ও আদর্শের প্রতি নিষ্ঠা এবং নেত্রীর প্রতি একাগ্রতাই হবে দলীয় পদ পাওয়ার ক্ষেত্রে যোগ্যতা।’

হাছান মাহমুদ আজ শুক্রবার পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের তৃণমূল প্রতিনিধি সভায় প্রধান বক্তার বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, যারা সুবিধাভোগের জন্য দল করছেন তাদের চিহ্নিত করে পদ থেকে সরিয়ে দিতে হবে। তিনি বলেন, পরপর তিনবার ক্ষমতায় থাকার কারণে দলের মধ্যে অনেক সুবিধাবাদী ও অনুপ্রবেশকারী ঢুকেছে। যারা একসময় আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে কাজ করেছে এবং নেতা কর্মীদের নির্যাতন করেছে তারা এখন এই সংগঠনের মধ্যে ঢুকে পড়েছে।

হাছান মাহমুদ বলেন, আওয়ামী লীগ পরপর তিনবার রাষ্ট্র ক্ষমতায়। এই কৃতিত্ব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার। তিনি সমস্ত প্রতিকূলতা ও প্রতিবন্ধকতার মধ্যে ১৯৮১ সালের ১৭ মে বাংলাদেশে ফিরে আসেন। এরপর বঙ্গবন্ধুহীন আওয়ামী লীগকে মায়ের মমতায়-বোনের স্নেহে লালন করে বারবার মৃত্যু উপত্যকা থেকে ফিরে এসেছেন। আরও প্রত্যয়ী হয়ে আওয়ামী লীগকে নেতৃত্ব দিয়ে বাংলাদেশের মানুষের ভোট এবং ভাতের অধিকার প্রতিষ্ঠা করেছেন। তিনি বলেন, তৃণমূলের কর্মীরা কখনো দলের সঙ্গে বেইমানি করেনি। তৃণমূল সব সময় দল ও নেতার সঙ্গে ঐক্যবদ্ধ থেকেছে, বিশ্বস্ততার সঙ্গে কাজ করেছে। সেই কারণে আওয়ামী লীগ আজ দেশের সর্ববৃহৎ রাজনৈতিক দল এবং চারবার রাষ্ট্র পরিচালনা করছে।

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘দলের কারণে সরকার, সরকারের কারণে দল নয়। আমাদের মূল ঠিকানা দল। নির্বাচিত এমপি, মন্ত্রী থেকে শুরু করে ইউপি চেয়ারম্যান পর্যন্ত সবার মূল ঠিকানা হচ্ছে দল। সবাই এখন দলীয় প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করে জয়ী হয়েছেন। দলের কারণে সবাই আমরা পদের মধ্যে আছি। সুতরাং দায়িত্ব পালন করার সময় দলের নেতা-কর্মীদের গুরুত্ব দিতে হবে।’

দলের তরুণ নেতা-কর্মীদের বিনয়ী হওয়ার অনুরোধ জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, বলেন, ক্ষমতায় থাকলে বিনয়ী হতে হয়। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ আজ বদলে গেছে। হাছান মাহমুদ বলেন, ‘কারও অপকর্মের দায় দল কখনো নেবেনা। তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি রেজাউল রহিমের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সাংসদ গোলাম ফারুখের পরিচালনায় প্রতিনিধি সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতি মণ্ডলীর সদস্য সাবেক মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। বিশেষ অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন।

বিএনপি ভোটের অঙ্কে ভুল করেছে

তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেছেন, বিএনপি ভোটের অঙ্কে ভুল করেছে। সম্প্রতি অনুষ্ঠিত ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচন সুন্দর পরিবেশে অনুষ্ঠিত হয়েছে। কোথাও কোনো অপ্রীতিকর পরিবেশ সৃষ্টি হয়নি। অনেক উন্নত দেশের তুলনায় ভালো ভোট হয়েছে। ইভিএমে ভোট কারচুপির সুযোগ নেই, একজনের ভোট অন্যজন দেওয়ারও সুযোগ নেই।

হাছান মাহমুদ আজ সকালে পাবনা সার্কিট হাউসে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এসব কথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘কম ভোট পড়ার ক্ষেত্রে বিএনপি অনেকাংশে দায়ী। বিএনপি মানুষের মধ্যে দ্বিধা-দ্বন্দ্ব সৃষ্টি করেছে। যার ফলে ১০/১৫ শতাংশ ভোট কম পড়েছে। সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ১৯ শতাংশ নয় ৩০ শতাংশের বেশি ভোট পড়েছে। বিএনপি ভোটের অঙ্কে ভুল করেছে।’
 

চট্টলার বার্তা
চট্টলার বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর